19.8 C
Rangpur City
Tuesday, December 6, 2022

দুটি স্টেডিয়াম নির্মাণের তরতাজা স্মৃতি দিনাজপুরের মাসুদ রানার

-- বিজ্ঞাপন --

কাতারে শুরু হলো ফুটবল বিশ্বকাপ। এ বিশ্বকাপের জন্য নির্মিত ৮টি স্টেডিয়ামের মধ্যে অন্তত দুটির সঙ্গে স্মৃতি জড়িয়ে আছে দিনাজপুরের ঘোড়াঘাট উপজেলার মাসুদ রানার। কাতারে তাকে অনেকে হারুনুর রশীদ নামে চেনেন।

এবারের বিশ্বকাপ ফুটবলের অন্যতম ভেন্যু ‘লুসাইল’ এবং ‘আল জানিয়্যুব’ স্টেডিয়াম দুটির নির্মাণকাজে জড়িত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পরিবহনের দায়িত্ব ছিল মাসুদ রানার। তাই তার চোখের সামনে তিলে তিলে গড়ে ওঠেছে এ দুটি স্টেডিয়াম।

-- বিজ্ঞাপন --

১৯৯৪ সালে ঘোড়াঘাট ডিগ্রি কলেজ থেকে স্মাতক শেষ করে দুবাই যান মাসুদ। সেখানে আন্তর্জাতিক মানের ড্রাইভিং লাইসেন্স পেয়ে দেশে ফিরে আসেন। ২০১২ সালে পাড়ি জমান কাতারে।

২০১৯ সালে কাতার বিশ্বকাপের স্টেডিয়াম নির্মাণকাজে জড়িত হন মাসুদ। সে সময় স্টেডিয়াম দুটির পাইলিংয়ের কাজ চলছিল। নির্মাণকাজে জড়িত কর্মচারী-কর্মকর্তাদের আনা-নেয়ার কাজে ব্যবহৃত গাড়ির প্রধান চালক হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন মাসুদ।

-- বিজ্ঞাপন --

এবারের বিশ্বকাপে ‘লুসাইল’ স্টেডিয়ামটিতে উদ্বোধনী ও ফাইনাল ম্যাচসহ মোট ১০টি খেলা হবে। ৮০ হাজার দর্শক একসঙ্গে বসে খেলা দেখতে পারবেন এখানে।

অন্যদিকে ‘আল জানিয়্যুব’ স্টেডিয়ামে মোট ৭টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে। নৌকার আদলে তৈরি করা হয়েছে এই স্টেডিয়াম।

-- বিজ্ঞাপন --

মাসুদ রানা কাতারের হামাদ বিন খালিদ (এইচবিকে) কোম্পানিতে চাকরি করেন। ‘লুসাইল’ ও ‘আল জানিয়্যুব’ স্টেডিয়ামের নির্মানকাজে ট্র্যাভেল এজেন্সি হিসেবে দায়িত্ব পায় কাতারের এই কোম্পানি। এই কোম্পানিরই প্রধান চালক ছিলেন মাসুদ রানা।

স্টেডিয়াম দুটির নির্মাণকাজ শেষ হওয়ায় কিছুদিন আগে ছুটিতে দেশে এসেছেন মাসুদ রানা। অভিজ্ঞতার কথা স্মরণ করে তিনি বলেন, ‘বিশ্বকাপের স্টেডিয়াম নির্মাণের কাজে জড়িয়ে পড়াটা স্বপ্নের মতো। দুটি স্টেডিয়াম নির্মাণের অনেক স্মৃতি আমার মনে আজীবন গেঁথে থাকবে। বিশাল একটি ইভেন্টে কাজ করতে পারাটাও অনেক গর্বের বিষয়। কত বড় বড় তারকা খেলবেন এসব মাঠে! ভেবেই ভালো লাগছে যে, এ কাজে একজন বাংলাদেশি হিসেবে আমারও অংশগ্রহণ আছে।’

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,607FollowersFollow
769SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles