26.6 C
Rangpur City
Wednesday, May 25, 2022
Royalti ad

আত্মহত্যা নয়, হত্যা করা হয় বেরোবির ছাত্র তুষারকে: ফরেনসিক রিপোর্ট

-- বিজ্ঞাপন --Royalti ad

রংপুরের হারাগাছে বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের (বেরোবি) ছাত্র তানভীর আলম তুষারের মৃত্যু আত্মহত্যা নয়। রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক বিভাগের ময়নাতদন্তে বলা হয়েছে আঘাতের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে তাকে ঘরে কাঠের পাইরে সঙ্গে ঝুলিয়ে রাখা হয়েছিল।

এ ঘটনায় গত ৪ মার্চ রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের হারাগাছ থানায় তানভীর আলম তুষারের পিতা মোহসিন আলী বাদী হয়ে অজ্ঞাতনামা ব্যক্তিদের বিরুদ্ধে থানায় মামলা করেছেন।

-- বিজ্ঞাপন --

পুলিশ জানায়, হারাগাছ থানাধীন রংপুর সিটি কর্পোরেশনের ৯ নম্বর ওয়ার্ডের সাহেবগঞ্জ বাজার এলাকার ব্যবসায়ী মহসিন আলীর একমাত্র ছেলে তানভীর আলম তুষার। তিনি বেগম রোকেয়া বিশ্ববিদ্যালয়ের অষ্টম ব্যাচের অর্থনীতি বিভাগের ছাত্র ছিলেন। গত বছরের ৭ অক্টোবর ভোরের দিকে নিজ শয়নকক্ষে গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেন তিনি। এর আগে তার ফেসবুক আইডিতে ‘I QUIT for ever’ ‘আমি চিরতরে ত্যাগ করেছি’ লিখে স্ট্যাটাস দেন তুষার। বেলা ১১টার দিকে তার চাচাতো ভাই সাব্বির আলম তাকে ডাকতে এসে রুমের দরজা বন্ধ দেখেন। পরে ডাকাডাকি করেও কোনো সাড়া না পেয়ে দরজা ভেঙে ভেতরে ঢুকে তুষারকে আধা পাকা ঘরের কাঠের পাইরে ঝুলন্ত অবস্থায় দেখেন। পরে স্থানীয় লোকজন ঘরে ঢুকে তাকে কাঠের পাইরের সঙ্গে ফাঁস লাগানো অবস্থায় উদ্ধার করে মেঝেতে নামিয়ে ফেলেন।

পরে খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থল থেকে তানভীর আলম তুষারের মরদেহ উদ্ধার করে। ময়নাতদন্তের জন্য লাশ রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের মর্গে পাঠায়।

-- বিজ্ঞাপন --

এ ঘটনায় তুষারের পরিবারের বরাত দিয়ে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের হারাগাছ থানার তত্কালীন ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) বর্তমানে মহানগর গোয়েন্দা পুলিশের ইন্সপেক্টর শওকত আলী সরকার
গত ৭ অক্টোবর স্থানীয় সাংবাদিকদের জানিয়েছিলেন, মোবাইলে জুয়া খেলতেন তুষার। এ নিয়ে পরিবারের সঙ্গে তার মনোমালিন্য সৃষ্টি হয়। এ ঘটনাকে কেন্দ্র করে তুষার গলায় ফাঁস দিয়ে আত্মহত্যা করেছেন। তার মরদেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানো হয়েছিল। এ ব্যাপারে ওইদিন হারাগাছ থানায় একটি ইউডি মামলা করা হয়।

তুষারের মা তাসলিমা বেগম বলেন, তার ছেলে শান্ত স্বভাবের ছিল, এলাকার কার সাথে জোরে কথা বলতো না। বন্ধুদের সাথে মিশতে গিয়ে তার ছেলের মৃত্যু হলো। তার ছেলে আগে জুয়া খেলা কি তা সে বুঝতো না, ওর বন্ধুরা বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে ছেলেকে মোবাইলে জুয়া খেলার আসক্তি করেছিল।

-- বিজ্ঞাপন --Bicon Icon

তিনি বলেন, ৫ অক্টোবর মঙ্গলবার তার ছেলে বন্ধুর বাড়ীতে যায় এবং সেখানে রাত্রী যাপন করে পরদিন ৬ অক্টোবর বুধবার বিকেলে বাড়ীতে আসে। সে সময় ছেলেকে বিষণ্ন থাকতে দেখেন তিনি। পরিবারের সবার সাথে কথাও বললো, রাতে খাওয়া দাওয়া করে ঘূমিয়ে পড়ে।৭ অক্টোবর ঘরে ছেলের লাশ দেখতে পান তিনি।

তুষারের চাচাত ভাই সাব্বির আলম জানান, সকালে ভাইকে অনেকক্ষন ডাকা ডাকি করি, কিন্তু কোন সাড়া না পেয়ে দরজার পাশে টিনের বেড়ার ফাঁক দিয়ে দেখি কাঠের পাইরে গলায় মাল্টিপ্লাগের বিদ্যুতের তার পেচানো ভাইয়ের দেহ বক্স খাটের উপর ঝুলছে।

সাব্বির বলেন, পারিবারিক বিষয় নিয়ে বাবার সঙ্গে মনোমালিন্য চলছিল তুষারের।কিন্তু এজন্য তুষার ভাইয়া আত্মহত্যা করতে পারে না। ফরেনসিক বিভাগের ময়নাতদন্ত মতে তার ভাইকে হয়তো কেউ মৃত্যুর আগে মানষিক বা শারীরিক আঘাত করেছিল।

তুষারের পিতা মোহসিন আলী জানান, মেডিকেলের প্রতিবেদনে তিনি জানতে পারলেন তার ছেলে আত্মহত্যা করেনি। তাকে হত্যা করা হয়েছে। হয়তো রাতের কোন এক সময় কেউ বাড়ীতে এসে তার ছেলেকে হত্যা করে লাশ ঝুলিয়ে রেখে কৌশলে পালিয়ে গিয়েছিল। তিনি বলেন, ছেলের ব্যবহৃত মোবাইল ফোনের কললিষ্ট অনুসন্ধান করলে হয়তো কোন ক্লু বের হবে। ছেলেকে কারা হত্যা করলো, কখন ছেলের মৃত্যু হলো, কেন বা ছেলেকে হত্যা করা হলো। ছেলের হত্যাকারীদের দৃষ্ঠান্তমুলক শাস্তির দাবী জানান তিনি।

মামলার তদন্ত কর্মকর্তা উপপরিদশক (এসআই) আবু ছাইম জানান, রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ফরেনসিক মেডিসিন বিভাগের লেকচারার ডা: ইফফাত শারমিন ময়নাতদন্ত প্রতিবেদনে উল্লেখ করেছেন, তানভীর আলম তুষারকে আঘাতের পর শ্বাসরোধে হত্যা করা হয়েছে। হত্যায় জড়িতদের শনাক্তের চেষ্টা চলছে।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,665FollowersFollow
402SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles