24.2 C
Rangpur City
Thursday, December 8, 2022

সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার প্রতিবাদে রাবিতে মানববন্ধন

-- বিজ্ঞাপন --

নড়াইলসহ সারাদেশে ধারাবাহিকভাবে ধর্মীয় সংখ্যালঘুদের ওপর সাম্প্রদায়িক হামলা, হত্যা, লুটপাট, প্রতিমা ভাঙচুর, অগ্নিসংযোগ এবং সহিংসতার প্রতিবাদ ও বিচারের দাবি জানিয়েছে রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের (রাবি) শিক্ষক-শিক্ষার্থীরা।

বৃহস্পতিবার (২১ জুলাই) বেলা ১১টায় বিশ্ববিদ্যালয়ের প্যারিস রোডে ‘সনাতন ধর্মাবলম্বী শিক্ষক-শিক্ষার্থীবৃন্দ’র ব্যানারে আয়োজিত এক মানববন্ধনে এই দাবি জানায় তারা।

-- বিজ্ঞাপন --

মানববন্ধনে আইন ও সালিশ কেন্দ্রের তথ্যের বরাত দিয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি বিভাগের মাস্টার্সের শিক্ষার্থী দীপু রায় বলেন, বাংলাদেশে গত ৯ বছরে সংখ্যালঘুদের ওপর ৩হাজার ৬৭৯টি হামলা হয়েছে। এর মধ্যে ১হাজার ৫৫৯টি বাড়িতে, ৪৪২টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এবং ১ হাজার ৬৬৮টি পূজামন্ডপে হামলার ঘটনা ঘটেছে। এই কয়েক বছরে আহত হয়েছে ৮৬২টি জন এবং নিহত হয়েছে ১১জন। এছাড়া ২০১৬ থেকে ২০ সাল পর্যন্ত ২০ টি পরিবারকে তাদের বাড়ি এবং জমিজায়গা থেকে উচ্ছেদের পাশাপাশি দুজন মেয়ে ধর্ষণ করা হয়েছে।

তিনি আরও বলেন, ২০১৪ সালের জাতীয় নির্বাচনের পরে ৭৬১টি বাড়ি, ১৯২টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠান এবং ২৪৭ টি মন্দির হামলায় আক্রান্ত হয়েছে এবং একজন সংখ্যালঘু এসব হামলায় নিহতও হয়েছে। এছাড়া শুধুমাত্র ২০২০ সালে ১১ টি হিন্দু বাড়িতে, ৩টি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে এবং ৬৭টি মন্দিরে হামলা এবং ভাংচুর হয়েছে। আমরা এসবের প্রতিকার দেখিনি। এসব ঘটনার পেছনে যারা দায়ী তাদেরকে শাস্তির আওতায় আনা হয়নি। আমরা আজকের মানববন্ধনের মাধ্যমে এসব হামলার তীব্র প্রতিবাদ ও বিচার দাবি করছি। এসময় তিনি দেশে বিচারহীনতার অপসংস্কৃতির বিরুদ্ধে সবাইকে রুখে দাঁড়াতে আহ্বান জানান।

-- বিজ্ঞাপন --

দর্শন বিভাগের অধ্যাপক এস এম আবু বকর বলেন, সংস্কৃতির একটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান ধর্ম। কিন্ত সমগ্র অংশ নয়। এখানে পঞ্চাশ বছর আগেও যেকোনো জাতীয় সংকটে হিন্দু-মুসলিম অন্যান্য সব ধর্মের মানুষ একত্রে প্রতিরোধ গড়ে তুলেছে। এটাই বাঙালি সংস্কৃতি। কেবলই প্রশাসন, পুলিশ সার্বিক নিরাপত্তা দিতে পারবেনা যদি না আমাদের মধ্যে অসাম্প্রদায়িক সংস্কৃতির চর্চা বহাল থাকে।

তিনি আরও বলেন, মানুষের মনুষ্যত্ব হারানোর চেয়ে নিকৃষ্ট আর কিছু হতে পারেনা। কোনো ব্যক্তি ভালো কিংবা মন্দ হতে পারে তাই বলে সে কাজের জন্য পুরো সম্প্রদায়কে ভালো কিংবা খারাপ বিবেচনা করে হামলা করা গর্হিত কাজ। আজকের যে পরিস্থিতি তৈরি হয়েছে তা নিঃসন্দেহে আমাদের মধ্যে যে অসম্প্রীতি বিরাজ করছে তার ইঙ্গিত দেয়। তাই এ সংকট মোকাবিলায় আমাদের একত্রিত হতে হবে।

-- বিজ্ঞাপন --

মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপ-উপাচার্য ও প্রাণিবিদ্যা বিভাগের অধ্যাপক আনন্দ কুমার সাহা বলেন, একজন সনাতন ধর্মাবলম্বী হলেও সর্বপ্রথম আমি নিজেকে একজন মানুষ মনে করি। আর একজন মানুষ হিসেবেই আমি আজকের এই মানববন্ধনে দাঁড়িয়েছি। আমরা আজকের মানববন্ধনের মাধ্যমে চলমান সংখ্যালঘুদের ওপর হামলার ঘটনার তীব্র প্রতিবাদ জানাচ্ছি। সেই সঙ্গে আমরা হামলাকারীদের দ্রুত শাস্তির আওতায় আনার দাবি জানাচ্ছি। এসময় তিনি রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষক-শিক্ষার্থী এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদেরসহ দেশের সকল মানুষকে অসাম্প্রদায়িকতার বন্ধনে আবদ্ধ হয়ে এক হয়ে চলার আহ্বান জানান।

মানববন্ধনে বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইক্রোবায়োলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক অমিত কুমার দত্তের সঞ্চালনায় অন্যদের মধ্যে বক্তব্য দেন ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের সভাপতি ফায়েক উজ্জামান, বাংলা বিভাগের অধ্যাপক সফিকুন্নবী সামাদী, আইন বিভাগের সভাপতি হাসিবুল আলম প্রধান, চারুকলা অনুষদের শিক্ষার্থী মনু মোহন বাপ্পা প্রমুখ। এসময় বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন বিভাগের শতাধিক শিক্ষক-শিক্ষার্থী উপস্থিত ছিলেন।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,607FollowersFollow
768SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles