19.8 C
Rangpur City
Tuesday, December 6, 2022

রংপুরে দাম কমেছে কাঁচামরিচের, বেড়েছে ডিম ও মুরগির

-- বিজ্ঞাপন --

সপ্তাহের ব্যবধানে দাম বেড়েছে মুরগির রংপুরে। সেইসঙ্গে বেড়েছে ডিমসহ কিছু সবজির দর। তবে কাঁচামরিচের দাম কিছুটা কমলেও তা এখনো অসহনীয় পর্যায়ে। এছাড়া দাম বাড়তির তালিকায় যুক্ত হয়েছে আদা, চাল ও ময়দা।

মঙ্গলবার (০৯ আগস্ট) রংপুর নগরীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে দেখা যায়, খুচরা পর্যায়ে ব্রয়লার মুরগির ডিমের হালি ২-৩ টাকা বেড়ে ৪২-৪৩ টাকা, দেশি পেঁয়াজ ৪০ টাকা এবং আমদানিকৃত ভারতীয় পেঁয়াজ আগের দামে ৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

-- বিজ্ঞাপন --

খুচরা পর্যায়ে প্রতিকেজি করলা গত সপ্তাহের তুলনায় ৫-১০ টাকা বৃদ্ধি পেয়ে ৫৫-৬০ টাকা, টমেটো ১০-২০ টাকা বেড়ে ১৩০-১৪০ টাকা, শসা আগের মতোই ৩৫-৪০ টাকা, চিকন বেগুন ১০-১৫ টাকা বেড়ে ৩৫-৪০ টাকা, আগের দামে গোল বেগুন ৪৫-৫০ টাকা, পেঁপে ২৫-৩০ টাকা, লেবু প্রতি হালি ৮-১০ টাকা, কাঁচামরিচ ২১০-২৪০ টাকা থেকে কিছুটা কমে ১৯০-২০০ টাকা, শুকনা মরিচ ৪৫০-৫০০ টাকা, লাউ প্রতি পিস ৩০-৪০ টাকা, কাঁচকলার হালি ২৫-৩০ টাকা, ঢেঁড়স আগের মতোই ৪০-৪৫ টাকা, কচুরলতি ৩৫-৪০ টাকা, বরবটি ৫-১০ টাকা কমে ৪০-৪৫ টাকা, দুধকুষি ৩৫-৪০ টাকা, পটল ৫-১০ টাকা বেড়ে ৩৫-৪০ টাকা, প্রতি কেজি মিষ্টিকুমড়া ২৫-৩০ টাকা, চালকুমড়া আকারভেদে দাম বেড়ে ৩৫-৪০ টাকা, ঝিঙ্গা ৩৫-৪০ টাকা ও কাঁকরোল ৩০-৩৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। এছাড়া বাজারে নতুন আসা বাধাকপি বিক্রি হচ্ছে ৫০ থেকে ৬০ টাকা কেজি।

সব ধরনের শাক ১০-১৫ টাকা আঁটি, দেশি আদার দাম বেড়ে হয়েছে ১২০-১৪০ টাকা এবং রসুন আগের মতোই ৭০-৮০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

-- বিজ্ঞাপন --

খুচরা বাজারে এক লিটার বোতলজাত সয়াবিন তেল এখন ১৮৫ টাকা, পাঁচ লিটারের বোতল ৯১০ টাকা এবং খোলা সয়াবিন তেল বিক্রি হচ্ছে ১৭০-১৮০ টাকা দরে। বাজারে কার্ডিনাল আলু গত সপ্তাহের মতো ২৩-২৫ টাকা ও শিল আলু ৩৫-৩৮ টাকা এবং ঝাউ আলু ৩৫ টাকায় পাওয়া যাচ্ছে।

সিটি বাজারের সবজি বিক্রেতা মিলন মিয়া বলেন, সপ্তাহের ব্যবধানে কিছু সবজির দাম বেড়েছে। এখন অনেক সবজির উৎপাদন কমে গেছে। এ কারণে সরবরাহ কম থাকায় দাম বাড়ছে। এছাড়া আমদানি খরচ বেড়ে যাওয়ায় দামে প্রভাব পড়ছে বলেও অভিযোগ করেন তিনি।

-- বিজ্ঞাপন --

এদিকে খোলা চিনি ৩ টাকা বেড়ে ৮৮ টাকা এবং প্যাকেট চিনি ৯০ টাকা, মসুর ডাল (মাঝারি) গত সপ্তাহের মতোই ১১০-১২০ টাকা, চিকন ১৩৫-১৪০ টাকা, মুগ ডাল ১৪০-১৫০ টাকা, বুটের ডাল ৮০ টাকা, প্যাকেট আটা ৪৮-৫০ টাকা ও খোলা আটা ৪০-৪৫ টাকা এবং ময়দা ৬৫-৭০ টাকা থেকে বেড়ে ৭৪-৭৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

সপ্তাহের ব্যবধানে খুচরা বাজারে চালের দাম কিছুটা বেড়েছে। স্বর্ণা (মোটা) আগের মতোই ৫৪-৫৫ টাকা, বিআর-২৮ ৬৫-৬৬ টাকায় বিক্রি হলেও মিনিকেট ৬৮-৭০ টাকা থেকে বেড়ে ৭২-৭৫ টাকা এবং নাজিরশাইল ৭৫ টাকার জায়গায় ৮৫ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, প্রায় সব ধরনের মুরগির দাম এ সপ্তাহেও প্রতি কেজিতে ১০-২০ টাকা বেড়েছে। গত সপ্তাহে ব্রয়লার মুরগি ১৪০-১৫০ টাকায় বিক্রি হলেও এ সপ্তাহে দাম বেড়ে হয়েছে ১৬০-১৭০ টাকা, পাকিস্তানি মুরগি ২৫০-২৬০ টাকা থেকে ২৬০-২৭০ টাকা, পাকিস্তানি লেয়ার ২৫০-২৬০ টাকা এবং দেশি মুরগি আগের মতো ৪০০-৪১০ টাকা কেজি দরে বিক্রি হচ্ছে।

মুলাটোল আমতলা বাজারের মুরগি বিক্রেতা আল-আমিন বলেন, বাজারে সব ধরনের জিনিসপত্রের দাম বেড়েছে। সেই তালিকায় আছে মুরগির খাবারও। এ কারণে খামারিদের খরচ বৃদ্ধি পেয়েছে। ফলে মুরগির দামও বাড়তে শুরু করেছে।

বাজার ঘুরে দেখা যায়, গত সপ্তাহের মতোই গরুর মাংস ৬৫০-৭০০ টাকা এবং খাসির মাংস ৮০০-৯০০ টাকা কেজি বিক্রি হচ্ছে।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,607FollowersFollow
769SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles