30.6 C
Rangpur City
Monday, September 26, 2022
Royalti ad

মেয়ের প্রাক্তন প্রেমিকের হামলায় মা-বাবা হাসপাতালে ভর্তি

-- বিজ্ঞাপন --

মেয়ের প্রাক্তন প্রেমিকের হামলায় গুরুতর আহত হয়ে হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছেন মা ও বাবা। শনিবার (৭ মে) দিবাগত রাতে মাগুরার মহম্মদপুর উপজেলা সদরের রায়পাশা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে। হোসেন ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে মহম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো ইকরামুল হোসেন

রোববার (৮ মে) দুপুরে মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন ইলিয়াস মোল্যা (৪০) বলেন, আমার মেয়ে অনিমা (১৬) উপজেলা সদরের বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয় থেকে এ বছর এসএসসি পরীক্ষা দেবে। প্রতিবেশী রব্বান বিশ্বাসের ছেলে মারুফ বিশ্বাসের (২২) সঙ্গে অনিমার প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। এরপর মেয়ের বিয়েতে রাজি না হওয়ায় মারুফ ও তাঁর স্বজনেরা আমাদের পরিবারের লোকদের নানাভাবে হামলা মারধর ও হয়রানি করে আসছে। মারুফ উচ্চ মাধ্যমিক পাস করে বিদেশে যাওয়ার চেষ্টা করছে বলে জানিয়েছিল তাঁর পরিবার।

-- বিজ্ঞাপন --

ইলিয়াস মোল্যা আরও জানান, সম্প্রতি অনিমাকে ওই উপজেলার রাজাপুর ইউনিয়নের রাজপাট গ্রামের বাচ্চু মোল্যার ছেলে মনিরুল ইসলামের সঙ্গে বিয়ে দিই। বিয়ের পরও অনিমাকে তালাক দিয়ে মারুফকে বিয়ে করার জন্য তার স্বামী ও তার পরিবারের লোকজনকে নানাভাবে ভয়ভীতি ও হুমকি দিয়ে আসছে। 

ঈদে অনিমা বাবার বাড়ি রায়পাশায় বেড়াতে আসলে মারুফ তাকে বিয়ে করার জন্য জোরাজুরি করতে থাকে। এক পর্য়ায়ে ঘরে ঢুকে অনিমা মারধর করে। এ ঘটনায় মারুফসহ পাঁচজনের নামে মহম্মদপুর থানায় সাধারণ ডায়েরি করেন ইলিয়াস মোল্যা।

-- বিজ্ঞাপন --

তিনি আরও জানান, এই ঘটনার জেরে মারুফ ও তার স্বজন ১০-১২ মিলে শনিবার (৭ মে) রাতে ইলিয়াস মোল্যা ও তার স্বজনদের ওপর হামলা চালায়। এ সময় ধারালো অস্ত্র ও লাঠিসোঁটার আঘাতে ইলিয়াস মোল্যা (৪০), তার স্ত্রী রেহেনা পারভীন (৩৫) গুরুতর আহত হয়। তাদের মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করা হয়েছে। তাদের ছেলে জিহাদ (১৫) আহত হয়ে প্রাথমিক চিকিৎসা নিয়েছে।  

এ ঘটনায় মারুফের চাচা সাহের আলী (৪৫) আহত হয়ে একই হাসপাতালে চিকিৎসা নিচ্ছে।

-- বিজ্ঞাপন --

ইলিয়াস মোল্যা জানান, মারধর ও কুপিয়ে জখম করার পর রায়পাশা তিন রাস্তার মোড়ে তার ব্যবসা প্রতিষ্ঠানে হামলা চালিয়ে লুট করা হয়। এখন হাসপাতালে এসে মামলা না করার জন্য ভয়ভীতি ও হুমকি দিচ্ছে। তিনি ও তার পরিবার নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। 

মহম্মদপুর উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা ডা. মকসেদুল মোমিন জানান, মারধরের ঘটনায় মাথায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থারে জখম নিয়ে তিনজন ভর্তি আছেন। তাঁরা আশঙ্কামুক্ত।

মারুফ বিশ্বাস মোবাইল ফোনে প্রেমের কথা স্বীকার করলেও হামলা ও মারধরের বিষয়ে কিছু জানেন না বলে জানান।

মহম্মদপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো ইকরামুল হোসেন জানান, এ ঘটনায় মামলার প্রস্তুতি চলছে।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,629FollowersFollow
583SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles