21.7 C
Rangpur City
Tuesday, November 29, 2022

মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে এক পদে দায়িত্ব পালন করছেন দুই কর্মকর্তা

-- বিজ্ঞাপন --

গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসে এক পদে দুই কর্মকর্তা দায়িত্ব পালন করছেন। শিক্ষা কর্মকর্তার বদলির পাল্টাপাল্টি আদেশের কারণে এ অবস্থার সৃষ্টি হয়েছে। এতে করে মাধ্যমিক পর্যায়ের প্রতিষ্ঠানের শিক্ষা এবং চলমান এসএসসি ও সমমানের পরীক্ষা কার্যক্রম পরিচালনা বিঘ্নিত হচ্ছে।

কার্যালয় সূত্রে জানা গেছে, উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা এইচ এম মাহাবুবুল ইসলামকে ২৮ আগস্ট লালমনিরহাটের পাটগ্রামে বদলি করা হয়। তাঁর স্থলে পঞ্চগড়ের বোদা উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. আবুল হোসেনকে পদায়ন করা হয়।

-- বিজ্ঞাপন --

মাহাবুবুল ইসলাম বদলির আদেশ বাতিল বা স্থগিত চেয়ে ঢাকার প্রশাসনিক ট্রাইব্যুনাল-১-এ আবেদন করেন। সেই পরিপ্রেক্ষিতে ১১ সেপ্টেম্বর ট্রাইব্যুনালের বিচারক বদলির আদেশে স্থিতাবস্থা জারি করেন। অপরদিকে বোদা থেকে বদলি হয়ে আসা আবুল হোসেন একই দিনে গাইবান্ধা জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তার কাছে যোগদানপত্র জমা দেন। সেই থেকে এক পদে দুজন উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা কর্মকাণ্ড পরিচালনা করছেন।

শিক্ষা অফিসের হিসাবরক্ষক মো. ফেরদৌস মণ্ডল জানান, আবুল হোসেন চলমান এসএসসি পরীক্ষার দায়িত্ব পালন করছেন। অপরদিকে মাহাবুবুল ইসলাম প্রায় সময়ই কার্যালয়ে অবস্থান করছেন। এ ছাড়া দুজনই উপজেলার উচ্চবিদ্যালয় ও মাদ্রাসাগুলোর শিক্ষা কার্যক্রম পরিদর্শন অব্যাহত রেখেছেন।

-- বিজ্ঞাপন --

উপজেলা উচ্চবিদ্যালয় প্রধান শিক্ষক সমন্বয় পরিষদের সভাপতি ও মতিউন নেছা উচ্চবিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোস্তাফিজার রহমান বলেন, ‘বর্তমানে দুজনই নিজেকে সাদুল্লাপুর উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার হিসেবে দাবি করছেন। কিন্তু আমরা কার আদেশ পালন করব? এ নিয়ে বেশ দ্বিধাদ্বন্দ্বে পড়েছেন প্রধান শিক্ষকেরা। এতে মাধ্যমিক পর্যায়ের উচ্চবিদ্যালয় ও মাদ্রাসার শিক্ষা কার্যক্রম বিঘ্নিত হচ্ছে।’

জানতে চাইলে মাহাবুবুল ইসলাম জানান, মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক নেহাল আহমেদ স্বাক্ষরিত ২৮ আগস্টের প্রজ্ঞাপন সূত্রে তিনি জানতে পারেন, তাঁকে তাঁর আবেদনের পরিপ্রেক্ষিতে বদলি করা হয়েছে। কিন্তু তিনি বদলির জন্য কোনো আবেদন করেননি। এ ছাড়া মাত্র ৯ মাস আগে তিনি এই কর্মস্থলে (সাদুল্লাপুর) যোগদান করেছেন।

-- বিজ্ঞাপন --

এই কর্মকর্তা দাবি করেন, তাঁর কাছ থেকে অবৈধ সুযোগ-সুবিধা নিতে না পেরে একটি মহল তাঁর স্বাক্ষর জাল করে বদলির আবেদন করেছে। এ কারণে তিনি বদলির বিরুদ্ধে মামলা করেন। বিচারক স্থিতাবস্থা জারি করার পর থেকে তিনি সাদুল্লাপুরে নিয়মিত অফিস করছেন।

অন্যদিকে আবুল হোসেন জানান, মাহাবুবুল ইসলাম বদলি আদেশের বিরুদ্ধে ১৯ সেপ্টেম্বর স্থিতাবস্থার আদেশ নিয়ে তাঁর কাছে আসেন। এ সময়ে তিনি এসএসসি পরীক্ষার দায়িত্বে স্থানীয় একটি পরীক্ষাকেন্দ্রে চলে যান। তারপর থেকে মাহাবুবুল অফিস দখল করে আছেন। বিষয়টি তিনি জেলা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তা, উপপরিচালক ও মহাপরিচালককে অবগত করেছেন।

যোগাযোগ করা হলে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা এনায়েত হোসেন বলেন, বিষয়টি মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালককে অবগত করা হয়েছে। তিনি এ বিষয়ে পরবর্তী পদক্ষেপ গ্রহণ করবেন।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,610FollowersFollow
752SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles