27 C
Rangpur City
Wednesday, May 25, 2022
Royalti ad

ভারতের হাসপাতালে বাংলাদেশের সরকারি ওষুধ!

-- বিজ্ঞাপন --Royalti ad

পশ্চিমবঙ্গের পূর্ব মেদিনীপুরের হাসপাতালে বাংলাদেশের সরকারি ওষুধ দেয়া হচ্ছে। আজ মঙ্গলবার (৫ এপ্রিল) কাঁথি মহকুমা হাসপাতালে রোগীদের হাতে তা দেখা যায়।

আনন্দবাজার পত্রিকার এক প্রতিবেদনে এ তথ্য পাওয়া গেছে। ওই হাসপাতালের আউটডোরে চিকিৎসা নেয়া রোগীদের কয়েকজনের প্রেসক্রিপশনে ডক্সিসাইক্লিন ক্যাপসুল দেন চিকিৎসক। সেই প্রেসক্রিপশন দেখিয়ে হাসপাতালের সরকারি ফার্মেসি থেকে তা নেন রোগীরা।

-- বিজ্ঞাপন --

ওষুধের মোড়কে কবে তৈরি বা মেয়াদ কবে শেষ— এ রকম কোনো তথ্য ছিল না। বাংলাদেশের সরকারি ওষুধ কলকাতার হাসপাতালে রোগীদের দেওয়ার এই ঘটনা সামনে আসায় শোরগোল পড়ে যায় সেখানে। কীভাবে এই ঘটনা ঘটেছে তা তদন্ত করে দেখার নির্দেশ দিয়েছে পূর্ব মেদিনীপুর জেলা প্রশাসন। তবে এই ওষুধ কলকাতা থেকে পাঠানো হয়েছে বলে দাবি করেছে স্থানীয় প্রশাসন।

পূর্ব মেদিনীপুরের জেলা প্রশাসক পূর্ণেন্দু কুমার মাজির বলেন, বিষয়টি নজরে আসার পর প্রাথমিকভাবে অনুসন্ধান করে জানা গেছে, কলকাতার সরকারি স্টোর থেকে ওষুধগুলো এসেছে। তবে আসলে কী ঘটেছে, তা খতিয়ে দেখার জন্য জেলার ডেপুটি মুখ্য স্বাস্থ্য কর্মকর্তাকে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। তদন্ত প্রতিবেদন পাওয়ার পর বিস্তারিত জানা যাবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

-- বিজ্ঞাপন --

বাংলাদেশের সরকারি ওষুধ কীভাবে রাজ্যের একটি হাসপাতালে এলো তা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছে পশ্চিমবঙ্গের বিরোধীদল ভারতীয় জনতা পার্টি (বিজেপি)। মেদিনীপুরের দক্ষিণ কাঁথির বিজেপি বিধায়ক অরূপ দাস বলেছেন, ভারতে উৎপাদিত ওষুধের পরিবর্তে বাংলাদেশের তৈরি ওষুধ কেন আনা হয়েছে, তা আমাদের জানা প্রয়োজন। এছাড়া এই ওষুধের উৎপাদন বা মেয়াদের তারিখ কেন উল্লেখ নেই, তা নিয়েও প্রশ্ন জাগছে।

তিনি বলেন, ইতিমধ্যে কাঁথি হাসপাতালে খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, ওষুধগুলো সরকারিভাবে সরবরাহ করা হয়েছিল। এমন গুরুত্বপূর্ণ ওষুধ বাংলাদেশ থেকে কোন পথে ভারতে এলো, তা নিয়ে তদন্তের দাবি জানাচ্ছি। রাজ্য সরকারের পক্ষ থেকে বাংলাদেশ থেকে আসা ওষুধের বিষয়ে স্পষ্ট জবাব না পেলে ঘটনাটির জন্য কেন্দ্রের হস্তক্ষেপ চাওয়া হবে।

-- বিজ্ঞাপন --Bicon Icon

এদিকে পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভার বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর গড় বলে পরিচিত পূর্ব মেদিনীপুর জেলা থেকে এমন ঘটনা ঘটায় প্রত্যাশিতভাবে ময়দানে নেমেছে বিজেপি।

ওষুধগুলো বাংলাদেশ থেকে বৈধভাবে এসেছে নাকি অবৈধভাবে তা জানা প্রয়োজন বলে মনে করছেন শুভেন্দু অধিকারী।

তিনি বলেন, ‘এমন ঘটনা অতীতে ঘটেনি। ভারত যেখানে সারা বিশ্বে ওষুধ রপ্তানি করে, সেখানে কীভাবে পশ্চিমবঙ্গ সরকারের সরকারি স্টোরে বাংলাদেশি ওষুধ ঢুকলো তার প্রকৃত কারণ জানতে উচ্চপর্যায়ে নিরপেক্ষ তদন্তের দাবি করি।’

রাজ্যের স্বাস্থ্য ভবনের আরেক কর্তা বলেন, ভারতে করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ের সময় বাংলাদেশ সরকার ওষুধের বড় চালান পাঠিয়েছিল পশ্চিমবঙ্গে। সেই ওষুধের একটা বড় অংশ ছিল রাজ্যের মেডিসিন স্টোরে। ভুলক্রমে সেই ওষুধও পাঠানো হতে পারে এই হাসপাতালে।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,665FollowersFollow
402SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles