30.6 C
Rangpur City
Monday, September 26, 2022
Royalti ad

ফেসবুক স্ট্যাটাসের কারণে ‘তিরস্কার’ পেলেন র‍্যাবের সেই ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলম

-- বিজ্ঞাপন --

ফেসবুকে স্ট্যাটাস দিয়ে শাস্তি পেয়েছেন র‍্যাবের সেই ম্যাজিস্ট্রেট মো. সারওয়ার আলম। প্রশাসনের এই আলোচিত কর্মকর্তাকে (সিনিয়র সহকারী সচিব) তিরস্কারসূচক লঘুদণ্ড দিয়ে প্রজ্ঞাপন জারি করেছে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। গত ২১ এপ্রিল তাকে এই লঘুদণ্ড দেওয়া হয়।

এর আগে গত বছরের ৭ মার্চ প্রশাসনের ৩৩৭ জন সিনিয়র সহকারী সচিবকে উপ-সচিব পদে পদোন্নতি দেয় সরকার। কিন্তু পদোন্নতি বঞ্চিত হন ২৭তম বিসিএসের প্রশাসন ক্যাডারের কর্মকর্তা সারওয়ার আলম। এরপর তিনি ওই বছরের ৮ মার্চ ফেসবুকে একটা স্ট্যাটাস দেন।

-- বিজ্ঞাপন --

তাতে তিনি লিখেন, ‘চাকরি জীবনে যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী অন্যায়, অনিয়মের বিরুদ্ধে লড়েছেন তাদের বেশিরভাগই চাকরি জীবনে পদে পদে বঞ্চিত ও নিগৃহীত হয়েছেন এবং এ দেশে অন্যায়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়াটাই অন্যায়।’

স্ট্যাটাসটি তখন ভাইরাল হয়ে যায়। এরপর ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ারকে বিচারের আওতায় আনে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। গত ৩০ জুন এ নিয়ে বিভাগীয় মামলা হয় এবং তার কাছে কৈফিয়ত তলব করা হয়। সারওয়ার আত্মপক্ষ সমর্থনে কোনো লিখিত বক্তব্য দেননি। এরই ধারাবাহিকতায় বিষয়টি তদন্তের জন্য কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়।

-- বিজ্ঞাপন --

জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের তদন্তে এ স্ট্যাটাসকে সরকার ও কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে ‘ইঙ্গিতপূর্ণ’ মন্তব্য হিসেবে চিহ্নিত করা হয়। একই সঙ্গে একে অকর্মকর্তাসুলভ আচরণ এবং জনপ্রশাসনের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হয়েছে বলে উল্লেখ করা হয়।

গত ২১ এপ্রিল জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সচিব কে এম আলী আজম এ সংক্রান্ত প্রজ্ঞাপনে স্বাক্ষর করার পর তা নিয়ে সরকারের বিভিন্ন স্তরে তোলপাড় সৃষ্টি হয়। ঈদের ছুটির পর গতকাল বৃহস্পতিবার সংশ্লিষ্ট দপ্তরে এ প্রজ্ঞাপন পাঠানোর পর তা জানাজানি হয়।

-- বিজ্ঞাপন --

শাস্তির প্রজ্ঞাপনে বলা হয়েছে, মো. সারওয়ার আলম ২০২১ সালের ৮ মার্চ বেলা ১২টা ১০ মিনিটে তার ফেসবুক আইডিতে ‘চাকরীজীবনে যেসব কর্মকর্তা-কর্মচারী অন্যায়, অনিয়মের বিরুদ্ধে লড়েছেন তাদের বেশিরভাগই চাকুরীজীবনে পদে পদে বঞ্চিত ও নিগৃহীত হয়েছেন এবং এদেশে অন্যায়ের বিরুদ্ধে অবস্থান নেওয়াটাই অন্যায়’ বলে মন্তব্য করেন। একজন সরকারি কর্মচারী হয়ে সরকার ও কর্তৃপক্ষের বিরুদ্ধে এ ধরনের ইঙ্গিতপূর্ণ মন্তব্য করার মাধ্যমে ‘অকর্মকর্তাসুলভ’ আচরণ করেছেন। এতে জনপ্রশাসনের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হওয়ায় সরকারি কর্মচারী (শৃঙ্খলা ও আপিল) বিধিমালা, ২০১৮ এর ৩ (খ) বিধি অনুযায়ী ‘অসদাচরণ’-এর অভিযোগে তার বিরুদ্ধে ০১৫/২০২১ নম্বর বিভাগীয় মামলা রুজু করে গত বছরের ৩০ জুন অভিযোগনামা ও অভিযোগ বিবরণী প্রেরণ করে কৈফিয়ত তলব করা হয়। যেহেতু অভিযুক্ত কর্মকর্তা নির্ধারিত বা বর্ধিত সময়ের মধ্যে আত্মপক্ষ সমর্থনে কোনো লিখিত বক্তব্য দাখিল করেননি এবং অভিযোগের বিষয়ে তদন্তের প্রয়োজনীয়তা রয়েছে মর্মে প্রতীয়মান হওয়ায় তদন্ত কর্মকর্তা নিয়োগ করা হয়। তদন্ত কর্মকর্তা প্রতিবেদন দাখিল করলে তা পর্যালোচনায় মো. সারওয়ার আলমের বিরুদ্ধে ‘অকর্মকর্তাসুলভ’ আচরণ এবং জনপ্রশাসনের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্নের অভিযোগ প্রমাণ হয়। এজন্য তাকে তিরস্কারসূচক লঘুদ- দেওয়া হয়েছে।’

এদিকে, পদোন্নতিবঞ্চিত হওয়ার পর নতুন করে তিরস্কারসূচক লঘুদণ্ড দেওয়ায় সারওয়ারের মতো অন্য সাহসী কর্মকর্তারা ভবিষ্যতে নিষ্ঠা ও সততার সঙ্গে কাজের ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়বেন বলে মনে করেন প্রশাসন বিশেষজ্ঞরা। সারওয়ার আলমের শাস্তি নিয়ে প্রকাশ্যে বক্তব্য দিতে চাননি কোনো কর্মকর্তা।

উল্লেখ্য, সারওয়ার আলম র‍্যাবের নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট থাকার সময় ভেজাল, অনিয়মের বিরুদ্ধে অভিযান পরিচালনা করে মানুষের প্রশংসা পান। ২০২০ সালের ৯ নভেম্বর তাকে প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব হিসেবে বদলি করা হয়।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,629FollowersFollow
583SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles