19.8 C
Rangpur City
Tuesday, December 6, 2022

পঞ্চগড়ে চুরির অভিযোগে ইউপি ভবনে আটকে রাখা যুবকের ঝুলন্ত মরদেহ উদ্ধার

-- বিজ্ঞাপন --

পঞ্চগড়ে ইউনিয়ন পরিষদ কক্ষে হেফাজতে থাকা অবস্থায় মো. সুজন (২৫) নামে এক ছিঁচকে চোর আত্মহত্যা করেছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। বৃহস্পতিবার (২৫ আগস্ট) সকালে উপজেলা সদরের ৩নং পঞ্চগড় সদর ইউনিয়ন পরিষদের একটি কক্ষ থেকে তার মরদেহ উদ্ধার করা হয়। পরে মরদেহ ময়নাতদন্তের জন্য পঞ্চগড় আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়।

মো. সুজন উপজেলা সদরের পঞ্চগড় সদর ইউনিয়নের গোয়ালপাড়া এলাকার মৃত কছিম উদ্দীনের ছেলে। স্থানীয়দের দাবি, সুজন মাদকাসক্ত ও ছিঁচকে চোর ছিলেন।

-- বিজ্ঞাপন --

বিষয়টি নিশ্চিত করেন সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ মিঞা।

পুলিশ, নিহতের পরিবার ও ইউপি কার্যালয় সূত্র জানায়, সুজন একাধিকবার ছোটখাট চুরি করতে গিয়ে ধরা পরেছেন। বুধবার রাতে স্থানীয় একটি মসজিদের ব্যাটারি চুরির অভিযোগে স্থানীয় লোকজনসহ ইউপি চেয়ারম্যান আল ইমরান খান তাকে আটক করে। এ সময় সুজন স্থানীয় জাহেদুল হকসহ মসজিদের ব্যাটারি চুরি করেছেন বলে স্বীকার করেন এবং সকালে চুরি করা ব্যাটারি উদ্ধার করে দিবেন বলেও জানান। পরে রাত দুইটার দিকে ইউনিয়ন পরিষদের গ্রাম পুলিশ গিয়ে জাহেদুলকেও আটক করে ইউনিয়ন পরিষদের পৃথক দুইটি কক্ষে দুইজনকে আটকে রাখে। তাদের পাহারায় রাখা হয় ইউপি কার্যালয়ের দফাদার জামিরুল ইসলামকে । সকালে দফাদার জামিরুল তাদের জন্য নাশতা নিয়ে গিয়ে ডাকতে গেলে একটি ঘরে সুজনের ঝুলন্ত মরদেহ দেখতে পান।

-- বিজ্ঞাপন --

নিহত সুজনের শ্বশুর চাঁন মিয়া বলেন, আমার জামাইয়ের বাবা নেই। আমরাই তার অভিভাবক। কীভাবে এমন ঘটনা ঘটেছে এখনো বলতে পারছি না। সকাল থেকে মরদেহ নিয়ে ছোটাছুটি করছি। ময়নাতদন্তের পর মরদেহ নিয়ে দাফন করা হবে। মামলা বা অভিযোগের বিষয়ের এখনো কোনো চিন্তা করিনি। আমার ছোটভাই আছে তার সঙ্গে পরামর্শ করে পরবর্তী পদক্ষেপ নেওয়া হবে।

এ ব্যপারে পঞ্চগড় সদর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান আল ইমরান খান বলেন, রাতে আটকের পর তারা মসজিদের চুরি হওয়া ব্যাটারি সকালে উদ্ধার করে দিতে চেয়েছিল। তারা মসজিদের লোকজনের কাছে ক্ষমাও চায় এবং স্থানীয়রা তাদের মাফ করে দেয়। এছাড়া মৃত সুজন আমার প্রতিবেশী এবং আমার জমিতেই সে পরিবার নিয়ে বসবাস করে।

-- বিজ্ঞাপন --

তিনি আরও বলেন, চুরি এবং মাদকের বিষয় তাকে একাধিকবার ধরে বুঝিয়ে ছেড়ে দেওয়া হয়েছিল। সকালে ব্যাটারি উদ্ধার শেষে সালিশের পর তাদের পুলিশে না দিয়ে ছেড়ে দেওয়ার পরিকল্পনা ছিল। মূলত চুরি হওয়া ব্যাটারি সকালে উদ্ধারের জন্যই তাদের রাতে আটকে রাখা হয়। কিন্তু রাতেই সুজন তার কাছে থাকা গামছা জাতীয় কাপড় দিয়ে সে আত্মহত্যা করে।

পঞ্চগড় সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) আব্দুল লতিফ মিঞা বলেন, সকালে সদর ইউনিয়ন পরিষদের কক্ষে একজনের ফাঁস লাগানোর খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে আমরা মরদেহ উদ্ধার করি। পরে মরদেহের সুরতহাল করে ময়নাতদন্তের জন্য জেলা আধুনিক সদর হাসপাতালের মর্গে পাঠানো হয়েছে। ময়নাতদন্তের রিপোর্ট হাতে আসলে মৃত্যুর কারণ জানা যাবে।

তিনি আরও বলেন, এ ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর (ইউডি) মামলা প্রক্রিয়াধীন। অভিযুক্ত আরেক ছিঁচকে চোরকে পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। যদি কোনো অভিযোগ থাকে সেক্ষেত্রে তদন্ত সাপেক্ষে আইনি ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,607FollowersFollow
768SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles