22.2 C
Rangpur City
Sunday, May 22, 2022
Royalti ad

“নিত্যপ্রয়োজনীয় সবকিছু মেলে গাইবান্ধার করোনা বাজারে”

-- বিজ্ঞাপন --Royalti ad

‘করোনা’ নামে একটি গ্রাম্য বাজার স্থানীয়ভাবে গড়ে উঠেছে গাইবান্ধার গোবিন্দগঞ্জে। শুরুতে দু-একটি দোকান থাকলেও এখন তা পরিণত হয়েছে পূর্ণাঙ্গ একটি বাজারে। শাকসবজি, মাছ-মাংসের দোকান থেকে শুরু করে নিত্যপ্রয়োজনীয় সব পণ্যই মেলে এই বাজারে।

২০২০ সালে যখন করোনা শুরু হয়, তখন লকডাউনে সোনাতলায় যাওয়া বন্ধ হয় বাইগুনি এলাকার লোকজনের। রাস্তায় রাস্তায় দেওয়া হয় ব্যারিকেড। নিত্যপ্রয়োজনীয় বাজার করতে প্রতিবন্ধকতায় পড়ে স্থানীয়রা। পরে বাধ্য হয়ে এলাকার লোকজন একটি জায়গা নির্ধারণ করে একটি বাজার গড়ে তোলে। করোনাকালে বাজারটি তৈরি হয় বিধায় এলাকার মানুষজন নাম দেয় ‘করোনা বাজার’। সেই থেকে জেলা-উপজেলার গ্রামগঞ্জে বাজারটি করোনা বাজার নামে পরিচিত হয়ে আসছে।

-- বিজ্ঞাপন --

গাইবান্ধা জেলা শহর থেকে ৪০ কিলোমিটার দূরে গোবিন্দগঞ্জের শালমারা ইউনিয়নের বাইগুনি গ্রামের প্রত্যন্ত এলাকায় অবস্থান করোনা বাজারের। পাশেই বগুড়া জেলার সোনাতলা উপজেলা। প্রতিদিন বিকেল থেকে শুরু হওয়া এ বাজার চলে রাত ১০টা পর্যন্ত।

করোনা বাজারে জিনিসপত্র কিনতে আসা শান্তনা বেগম নামে এক নারী জানান, করোনা সময় সোনাতলা উপজেলায় যেতে না পেরে স্থানীয়রা বাজারটি গড়ে তুলে নাম দেয় করোনা বাজার। এই বাজারে নিত্যপ্রয়োজনীয় সব পণ্যই পাওয়া যায়।

-- বিজ্ঞাপন --

করোনা বাজারের মোকলেসুর রহমান নামে এক কাপড়ের দোকানদার বলেন, সকাল থেকে বাজারটি শুরু হলেও সকালের দিকে তেমন বেচাকেনা হয় না। মূলত বিকেল থেকে বাজারটি জমজমাট হয়ে ওঠে। রাত ১০টা পর্যন্ত চলে বাজারের কার্যক্রম।

পাশের রাজু নামে এক মুদি দোকানদার বলেন, বাজারটি নতুন হলেও এই বাজারে সবকিছু পাওয়া যায়। এখানকার লোকজনকে আর সোনাতলা বাজারে যাওয়া লাগে না। সবচেয়ে ভালো হয়েছে, আমার মতো কিছু বেকারের কর্মসংস্থানের সুযোগ হয়েছে। এই বাজারে আলু, পটোল, পেঁয়াজ মরিচ থেকে শুরু করে সব পণ্যই পাওয়া যায়।

-- বিজ্ঞাপন --Bicon Icon

শালমারা ইউনিয়ন পরিষদের ৭ নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য এমদাদুল হক মন্ডল বলেন, এলাকাটি প্রত্যন্ত হওয়ায় আশপাশে কোনো বাজার নেই। সবাই বগুড়া জেলার সোনাতলায় গিয়ে বাজার করত। করোনার সময় এই বাজারটি গড়ে ওঠায় এখন খুব সহজেই এখানকার লোকজন প্রয়োজনীয় সবকিছু কিনতে পারে।

বেশ কিছু লোকের কর্মসংস্থানও তৈরি হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, বেকার যুবকরা কর্মসংস্থান করে আয় করছে। কষ্ট করে এখন আর সোনাতলায় যাওয়া লাগে না। বাজারটি বিকেলে শুরু হয়ে অনেক রাত পর্যন্ত চলে। ধীরে ধীরে এই বাজারের দোকান বাড়ছে।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,666FollowersFollow
398SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles