30.6 C
Rangpur City
Monday, September 26, 2022
Royalti ad

টিকটকে ‘ফলোয়ার’ বৃদ্ধির নেশায় বনে আগুন দিলেন তরুণী! নিন্দার ঝড়

-- বিজ্ঞাপন --

‘আমি যেখানে যাই, সেখানেই আগুন জ্বলে’। বনে আগুন ধরিয়ে তার সামনে দাঁড়িয়ে এমনই এক টিকটক ভিডিও বানিয়েছেন পাকিস্তানি টিকটকার হুমাইরা আসগর।

নানা ইফেক্ট ব্যবহার করে সিনেমার অংশের মতো করে বানানো সেই ভিডিও আবার তিনি আপলোড করেছেন বিভিন্ন সামাজিক মাধ্যমে। কিন্তু ভাইরাল হওয়ার জন্য বনাঞ্চল ধ্বংসকে ভালোভাবে নেয়নি পাকিস্তানিরা। দেশটির সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমগুলোতে চলছে সমালোচনার ঝড়। এ খবর দিয়েছে আল-অ্যারাবিয়া।

-- বিজ্ঞাপন --

সোশ্যাল মিডিয়ায় ‘ফলোয়ার’ বৃদ্ধির নেশায় মাঝেমধ্যেই বিচিত্র সব কাণ্ডকারখানা করতে দেখা যায় টিকটকারদের। সপ্তাহ খানেক আগেই ভিডিওতে এক টিকটকারকে গ্যাসলাইট দিয়ে জঙ্গলে আগুন দিতে দেখা যায়। ভিডিওর ব্যাকগ্রাউন্ডের জন্য বনে আগুন দেয়ায় আবটাবাদ থেকে এক যুবককে গ্রেপ্তারও করে পুলিশ।

টিকটকে হুমাইরার অনুরাগীর সংখ্যা এক কোটিরও বেশি। ‘আমি যেখানেই যাই, আগুন ধরে যায়’ লিখে সোশ্যাল মিডিয়ায় ভিডিওটি প্রকাশ করেন হুমাইরা।

-- বিজ্ঞাপন --

ভিডিওটি প্রকাশের সঙ্গে সঙ্গেই ভাইরাল হয়ে যায়। শুরু হয় তীব্র সমালোচনা। নিন্দা শুরু হতেই তড়িঘড়ি মুছে ফেলা হয়েছে ভিডিওটি। হুমাইরার অবশ্য দাবি করেছেন, তিনি নিজে থেকে আগুন লাগাননি, পরিবেশের ক্ষতি করার কোনো ইচ্ছাও ছিল না তার।

টিকটক কর্তৃপক্ষ বিবৃতি দিয়ে জানিয়েছে, এ ধরনের ভিডিও প্রকাশ করা একেবারেই নিষিদ্ধ।

-- বিজ্ঞাপন --

এমনিতেই গ্রীষ্মের প্রখর তাপে পুড়ছে পাকিস্তান। কোনো কোনো অংশে তাপমাত্রা ছুঁয়েছে ৫০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। বিশেষজ্ঞদের একটি বড় অংশ প্রকৃতির এই রুদ্ররূপের জন্য দায়ী করছেন অনিয়ন্ত্রিত গাছ কাটাকে। পাশাপাশি প্রখর গ্রীষ্মে প্রাকৃতিকভাবেই দাবানল তৈরির আশঙ্কা বেড়ে যায় অনেকটা। তার মধ্যে মানুষ যদি খ্যাতির লোভে ইচ্ছাকৃতভাবে এ ধরনের কাণ্ড ঘটাতে থাকে, তবে তা যে কোনো সময় বড় ধরনের বিপর্যয় ডেকে আনতে পারে বলেও মনে করছেন অনেকেই।

ইসলামাবাদ ওয়াইল্ডলাইফ ম্যানেজমেন্ট বোর্ডের চেয়ারপার্সেন ও পরিবেশ কর্মী রিনা সইদ খান সাট্টি বলেছেন, টিকটর স্টারের ছবি তোলার থেকেও অনেকবেশি জরুরি ছিল আগুন নেভালোর জন্য এক বালতি জলের ব্যবস্থা করা। তিনি আরও বলেন এই ভিডিওগুলি খুবই খারাপ বার্তা দিচ্ছে জনগণকে। পরিবেশ কতটা গুরুত্বপূর্ণ তা বোঝানোর চেষ্টা করা হচ্ছে না। তিনি আরও বলেন, টিকটকে একটি বিরক্তিকর ও সর্বনাশা প্রবণতা শুরু হয়েছে। এই গরম ও শুষ্ক মৌসুমে ফলোয়ার পেতে মরিয়া তরুণ-তরুণীরা জঙ্গলে আগুন ধরিয়ে দিচ্ছে!

অস্ট্রেলিয়ায় জঙ্গলে আগুন দিলে যাবজ্জীবন কারাদ-ের বিধানের কথা উল্লেখ করে তিনি দাবি জানিয়েছেন, পাকিস্তানেও এ ধরনের আইন করা হোক। রিনার মতে, এসব মানসিক বিকারগ্রস্ত তরুণদের অবিলম্বে কারাগারে পাঠাতে হবে। এ কারণে এ ধরনের ঘটনার কোনো তথ্য থাকলে তা দ্রুত পাকিস্তান বন্যপ্রাণী বোর্ডকে জানানোর অনুরোধ জানিয়েছেন তিনি।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,629FollowersFollow
583SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles