26.1 C
Rangpur City
Sunday, August 14, 2022
Royalti ad

ছাত্রদল মাঠে নেমেছে, সরকার পতনের আগে ঘরে ফিরবে না: মির্জা ফখরুল

-- বিজ্ঞাপন --

‘ছাত্রদলের নেতাকর্মীরা মাঠে নেমেছে। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সারাদেশে আন্দোলন ছড়িয়ে পড়েছে। সরকার পতন না হওয়া পর্যন্ত নেতাকর্মীরা ঘরে ফিরবে না, বলে জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর।

শুক্রবার (২৭ মে) দুপুরে জাতীয় প্রেস ক্লাবে আয়োজিত এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন। ‘নির্দলীয় নিরপক্ষে সরকারের অধীনে নির্বাচন ও ভোটের অধিকার প্রতিষ্ঠার’ দাবিতে বিএনপির নেতৃত্বাধীন জোটের শরিক ন্যাশনাল পিপলস পার্টির (এনপিপি) একাংশ এ সভার আয়োজন করে।

-- বিজ্ঞাপন --

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আওয়ামী লীগ তাদের প্রতিষ্ঠাতা মওলানা আব্দুল হামিদ খান ভাসানীকেও টিকতে দেয়নি। দলের কাউন্সিলে তাকে হেনস্থা করা হয়েছিল। তিনি বেরিয়ে গিয়ে নতুন দল ন্যাশনাল আওয়ামী পার্টি করেন। গত ১৩ বছরে আওয়ামী লীগ আমাদের নেতাকর্মীদের নির্যাতন করেছে। ৩৫ লাখ নেতাকর্মীদের বিরুদ্ধে মামলা দিয়েছে। আমি নিজে বহুবার কারাগারে গেছি। এ অবস্থার অবসান হতে হবে।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘যার যার যে অবস্থান থেকে সবাইকে ঐক্যবদ্ধ করতে হবে। এ সরকারের বিরুদ্ধে গণআন্দোলন গড়ে তুলতে হবে। কারণ এ সরকারের অধীনে নির্বাচন সম্ভব নয়।’

-- বিজ্ঞাপন --

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘ঐক্যবদ্ধ হয়ে আওয়ামী লীগের রাহু থেকে জনগণকে মুক্ত করতে হবে। বিএনপি কোনো ব্যক্তি বা দলকে ক্ষমতায় বসাতে নয়, গণতন্ত্র পুনরুদ্ধারে আন্দোলনে নেমেছে।’

সুপ্রিম কোর্ট প্রাঙ্গণে ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের ওপর ছাত্রলীগের হামলার পর প্রধান বিচারপতি বিবৃতি না দেওয়ায় ক্ষোভ জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘ছাত্রলীগের সন্ত্রাসীরা সুপ্রিম কোর্টে ঢুকে হামলা করেছে। অথচ প্রধান বিচারপতি, সুপ্রিম কোর্ট বার অ্যাসোসিয়েশনের নেতারা একটি বিবৃতি পর্যন্ত দিলেন না। কারণ সরকার আজকে সব সাংবিধানিক প্রতিষ্ঠান, গণতান্ত্রিক প্রতিষ্ঠানকে দলীয় প্রতিষ্ঠানে পরিণত করেছে।’

-- বিজ্ঞাপন --

তিনি বলেন, ‘ছাত্রদলের নেতাকর্মীদের নৃশংসভাবে লাঠি দিয়ে পিটিয়ে পিটিয়ে আহত করেছে ছাত্রলীগের গুণ্ডারা। শুধু ছেলেদের নয়, মেয়েদের ওপরও হামলা করেছে ওরা। মেয়েদের একজন আইসিইউতে ভর্তি হয়েছেন। ছাত্রলীগ লাঠি নিয়ে রাজপথে যেভাবে প্রতিপক্ষকে পিটিয়েছে, তা দেখে পল্টনে লগি-বৈঠা দিয়ে মানুষ হত্যার পৈচাশিকতা পুনরাবৃত্তি বলে মনে হয়েছে। এটাই হলো আওয়ামী লীগের চরিত্র। তারা একটি সন্ত্রাসী দল।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা পরিষ্কারভাবে বলেছি- এই সরকারের অধীনে নির্বাচন সম্ভব নয়। আমাদের পূর্ব অভিজ্ঞতা থেকেও বলছি এই সরকারের অধীনে সুষ্ঠু নির্বাচন সম্ভব নয়। তারা (আওয়ামী লীগ) তত্ত্বাবধায়ক সরকার চেয়ে ছিল। খালেদা জিয়া সেই তত্ত্বাবধায়ক সরকার দিয়ে সংবিধানে সংযোজন করেছিল। কিন্তু এরা (আওয়ামী লীগ) কত বড় প্রতারক, মুনাফিক নিজের স্বার্থের জন্য তত্ত্বাবধায়ক সরকার ব্যবস্থা বাতিল করে দলীয় সরকারের অধীনে নির্বাচন দিয়েছে। এই অবস্থা থেকে বেরিয়ে আসতে হলে দেশের সকল রাজনৈতিক দল এবং সকল জনগণ ঐক্যবদ্ধ ক‌রে একটি যুদ্ধে নামতে হবে। তাহলে দেশে গণতন্ত্র ফিরে পাবো।’

‘আমরা যুদ্ধ করছি কোন দলের স্বার্থে নয়, কোন দলকে ক্ষমতায় নেওয়ার জন্য নয়। এই স্বার্থ দেশের। আমরা যে বাংলাদেশকে গড়তে চেয়ে ছিলাম সেই বাংলাদেশকে ফিরে পেতে চাই। তাই আসুন এই আলোচনা সভার মাধ্যমে আমরা প্রতিজ্ঞাবদ্ধ হই- এই দানবীয় সরকারের হাত থেকে এই দেশকে রাহুমুক্ত করা ছাড়া ঘরে ফিরবো না।’ তিনি বলেন, ‘জনগণকে ঐক্যবদ্ধ করার জন্য সকল রাজনৈতিক দল একমত হয়েছেন। বিশ্বাস করি সরকারের পতনের আন্দোলনকে আমরা বৃহত্তর ও গণতান্ত্রিক আন্দোলনে রূপ দিতে পারব।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘আমরা দেশের সকল রাজনৈতিক দলকে ঐক্যবদ্ধ হওয়ার জন্য আলোচনা করছি। আমরা আশাবাদী বিশ্বাস করি অধিকাংশ দল দেশপ্রেমী, গণতন্ত্রকামী এবং দেশে গণতন্ত্র প্রতিষ্ঠা করতে চায়। এটা প্রকাশিত হয়ে গেছে যারা ক্ষমতায় আছে তারা জোর করে ক্ষমতায় আছে। এবং যিনি সরকার প্রধান তিনি গণতন্ত্র, স্বাধীনতা দেশের জনগণ বিরোধী ব্যক্তি হিসেবে পরিণত হয়েছে।’

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,637FollowersFollow
501SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles