27.5 C
Rangpur City
Wednesday, August 10, 2022
Royalti ad

গাইবান্ধায় এখনও পানিবন্দি অবস্থায় ৬১ হাজার মানুষ, বাড়ছে দুর্ভোগ

-- বিজ্ঞাপন --

গাইবান্ধার সবকটি নদ-নদীর পানি কমতে শুরু করেছে। তবে এখনও বিপৎসীমার ওপরে রয়েছে ব্রহ্মপুত্র নদ ও ঘাঘট নদীর পানি। এছাড়া তিস্তা ও করতোয়ার পানি বিপৎসীমার নিচে রয়েছে। জেলায় এখনও পানিবন্দি অবস্থায় আছেন ৬১ হাজার মানুষ। নিরাপদ পানি ও খাবার সংকটে কষ্টে আছেন তারা।

জেলা প্রশাসন ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কয়েকদিন ধরে বানের পানিতে প্লাবিত হয় জেলার সদর, সুন্দরগঞ্জ, ফুলছড়ি ও সাঘাটা উপজেলার ২৩টি ইউনিয়নের চরাঞ্চলসহ নিম্মাঞ্চলের শতাধিক গ্রাম। এতে পানিবন্দি হয়ে পড়ে ৬১ হাজার মানুষ। নিমজ্জিত হয় বির্স্তীণ এলাকার পাট, বাদাম ও শাকসবজিসহ দুই হাজারের বেশি হেক্টর জমির বিভিন্ন ফসল। এছাড়া ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে পুকুর ও মৎস খামার। রাস্তাঘাট ডুবে যাওয়ায় ব্যাহত হয় যোগাযোগ ব্যবস্থা। বন্ধ ঘোষণা করা হয় দুর্গত চার উপজেলার প্রাথমিক ও মাধ্যমিকসহ ১২৬টি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান।

-- বিজ্ঞাপন --

সাঘাটা উপজেলার বাসিন্দা রাজিব হোসেন বলেন, চার দিন ধরে আমরা পানিবন্দি। খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকটে থাকলেও কোনও ধরনের সহায়তা পাইনি। আমরা খুব কষ্টে আছি।

বাড়িঘর ছেড়ে পানিবন্দি অনেকে আশ্রয় নেন বন্যা নিয়ন্ত্রণ বাঁধ ও উঁচু জায়গায়। এছাড়া সরকারিভাবে খোলা ১৮টি আশ্রয়কেন্দ্রেও কয়েক হাজার মানুষ আশ্রয় নেন। এরই মধ্যে দুর্গত এলাকাগুলোতে দেখা দিয়েছে খাবার ও বিশুদ্ধ পানির সংকট। পাশাপাশি গো-খাদ্যের সংকটে গবাদিপশু গরু-ছাগল নিয়ে বিপাকে পড়েন বানভাসিরা। ফলে দুর্গত এলাকার মানুষের দুর্ভোগ-কষ্ট বাড়লেও তাদের খোঁজ নেয়নি কেউ। আছে ত্রাণ সহায়তা না পাওয়ার অভিযোগও।

-- বিজ্ঞাপন --

যদিও বন্যাকবলিত চার উপজেলার মানুষের জন্য সরকারিভাবে ৬০৫ মেট্রিক টন চাল, নগদ ২২ লাখ টাকা, শিশু খাদ্যের জন্য ১৯ লাখ ও গো-খাদ্য ক্রয়ে ৩৭ লাখ টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।

এ বিষয়ে জেলা প্রশাসক মো. অলিউর রহমান বলেন, ইতিমধ্যে দুর্গত এলাকায় ৮০ মেট্রিক টন চাল, নগদ ছয় লাখ টাকা, শিশু খাদ্যের জন্য সাড়ে ১৫ লাখ টাকা ও গো-খাদ্যের জন্য ১৬ লাখ টাকা টাকা বিতরণের কাজ চলছে। বন্যাদুর্গত সব পরিবারকে সহায়তা দেওয়া হবে।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,637FollowersFollow
497SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles