29.2 C
Rangpur City
Wednesday, August 10, 2022
Royalti ad

কুড়িগ্রামে বৃষ্টিপাতে ডুবে গেছে স্কুল মাঠসহ বিভিন্ন ফসলি জমি

-- বিজ্ঞাপন --

উত্তরের জেলা কুড়িগ্রামে গত তিনদিন ধরে ভারী বৃষ্টিপাতে ডুবে গেছে স্কুল মাঠসহ বিভিন্ন ফসলি জমি। শনিবার (৪ জুন) বিকাল থেকে সোমবার (৬ জুন) এ জেলায় মোট ১৪৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত রেকর্ড করা হলেও সোমবার ২৪ ঘন্টায় রেকর্ড করা হয়েছে ১২০ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত। যাকে অতিভারী বৃষ্টিপাত বলা হয় বলে জানিয়েছেন রাজারহাট আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুস সবুর মিয়া।

এদিকে জেলাজুড়ে টানা তিনদিনের বৃষ্টিপাতের কারণে বিভিন্ন শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের মাঠ, কাঁচা ও পাকা সড়ক এবং নিম্নাঞ্চলগুলোতে তৈরি হয়েছে জলাবদ্ধতা। ফলে শিক্ষার্থীসহ সাধারণ মানুষ পড়েছে ভোগান্তিতে। বিশেষ করে টানা তিনদিনের বৃষ্টির কারণে নিম্ন আয়ের মানুষরা কাজে যেতে পারছেন না, পড়েছেন চরম দুশ্চিন্তায়। ভারী বৃষ্টিপাতে জেলার সব নদ-নদীর পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় রয়েছে বন্যার আশঙ্কা।

-- বিজ্ঞাপন --

এদিকে আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা আব্দুস সবুর মিয়া বলেন, আগামী ২৪ ঘন্টায় রংপুর বিভাগের কিছু কিছু স্থানে মাঝারি থেকে ভারী বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা রয়েছে। এতে করে জেলার চরাঞ্চল ও নিম্নাঞ্চলগুলো বৃষ্টির পানিতে প্লাবিত হতে পারে।

রৌমারী উপজেলার চরশৌলমারী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী রবিউল ইসলাম ও সালমা আক্তার জানান, তিনদিনের টানা বৃষ্টিতে আমাদের বিদ্যালয়ের মাঠ ডুবে গেছে। ফলে আমরা বাধ্য হয়ে হাঁটু পানিতে নেমে ক্লাসে যাচ্ছি। মাঠ ডুবে যাওয়ায় খেলাধুলাও বন্ধ হয়ে গেছে।

-- বিজ্ঞাপন --

চরশৌলমারী এলাকার বাসিন্দা রিপন জানান, চরশৌলমারী বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের মাঠটি প্রতি বছরের বর্ষা মৌসুমে ডুবে যায়। এতে করে শিক্ষার্থীদের নানা দুর্ভোগের শিকার হতে হয়।

ফুলবাড়ী উপজেলার কুরুষাফেরুষা এলাকার দিনমজুর কাসেম আলী জানান, আমি দিন আনি দিন খাই। ভারী বৃষ্টিপাতের কারণে কাজে যেতে পারিনি। এভাবে দুই-তিনদিন বৃষ্টি থাকলে আমাদের না খেয়ে থাকতে হবে। একই কথা বললেন ঠেলাগাড়ি চালক বাবলু চন্দ্র রায়, ভ্যান চালক হাক্কু মিয়া ও জহুরুল হক।

-- বিজ্ঞাপন --

উপজেলার কুরুষাফেরুষা গ্রামের সবজি চাষি সিদ্দিক মিয়া জানান, অবিরাম বৃষ্টিতে তার তিন বিঘা পাট শাকের ক্ষেত পানিতে নিমজ্জিত। পানি নেমে যাওয়ার জন্য জমির আইল কেটে দিলেও অবিরাম বৃষ্টিতে পাট শাক তলিয়ে গেছে। তিনি পুরো পাট শাকের ক্ষেত নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন।

একই অবস্থা চর রাজিবপুর উপজেলার রাজীবপুর সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়েও। এই বিদ্যালয়ের মাঠ বৃষ্টির পানিতে ডুবে যাওয়ায় শিক্ষার্থীরা চরম ভোগান্তি নিয়ে ক্লাসে যাচ্ছে।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,637FollowersFollow
497SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles