30.6 C
Rangpur City
Monday, September 26, 2022
Royalti ad

উটপাখি আবারও ডিম দিয়েছে রংপুর চিড়িয়াখানায়

-- বিজ্ঞাপন --

করোনা মহামারিতে দীর্ঘসময় সরকারি নির্দেশে বন্ধ রাখা অবস্থায় কোলাহলমুক্ত নিরিবিলি প্রাকৃতিক পরিবেশ বিরাজ করছিল রংপুর চিড়িয়াখানায়। গাছগাছালিতে ভরা বনজঙ্গলের নীরব, নিস্তব্ধ পরিবেশে খাঁচাবন্দি পশুপাখির প্রজনন ক্ষমতা বেড়ে যায়। ঘোড়া, হরিণ, গাধা, বানর, ময়ূর, মদনটেকসহ আরো বেশকিছু প্রাণীর ঘরে এসেছে নতুন অতিথি।

চিড়িয়াখানার এই উটপাখিটি আবার ডিম দিয়েছে। শনিবার দিনের কোনো এক সময়ে ডিমটি দিয়েছে উটপাখিটি।

-- বিজ্ঞাপন --

এর আগে গত কয়েকদিনে আরও দুটি ডিম দিলেও মূলত দুই বছর ধরে পুরুষ সঙ্গীর অভাবে কাজে আসছে না উটপাখির ডিমগুলো। দুই বছরে উটপাখিটি অন্তত ১০-১২টি ডিম দিয়েছে। চিড়িয়াখানা কর্তৃপক্ষ সেই ডিমগুলো ভেঙে শুধু খোসা সংরক্ষণে রাখছে।

উটপাখির ডিমে তা দেওয়ার কাজটি মূলত করে থাকে পুরুষ উটপাখি। আর রংপুর চিড়িয়াখানায় কোনো পুরুষ উটপাখি না থাকায় ডিমগুলো ফুটে বাচ্চা হচ্ছে না।

-- বিজ্ঞাপন --

স্থানীয় সচেতন মহলসহ দর্শনার্থীদের অনেকেই বলছেন, উটপাখির বংশ বিস্তারের জন্য দ্রুত একটি পুরুষ সঙ্গী আনা প্রয়োজন। উটপাখির জোড়া থাকলে এতো দিনে খাঁচায় পাখির সংখ্যা আরও বেড়ে যেত। এখন ডিমগুলো ফোটানোর জন্য পুরুষ পাখির দরকার। অন্যথায় ডিম দেওয়া শুধু স্মৃতি হিসেবে সংরক্ষিত হবে ।

এই প্রজাতির পাখি সম্পর্কে জানা গেছে, মূলত আফ্রিকার সাহারা মরু ভূমির দক্ষিণের তৃণভূমি উটপাখির মূল বিচরণস্থল। বিশ্বের অনেকস্থানে উটপাখি পালন একটি লাভজনক ব্যবসা। বিশ্ববাজারে এর চামড়া, মাংস, পালক ইত্যাদির ব্যাপক চাহিদা আছে। এ পাখি পোকা-মাকড় খায়। উড়তে না পারলেও ৭০ কিলোমিটার বেগে দৌড়াতে পারে।

-- বিজ্ঞাপন --

রংপুর চিড়িয়াখানা সূত্রে জানা গেছে, প্রায় সাড়ে ৩ বছর আগে ঢাকা চিড়িয়াখানা থেকে ৬ মাস বয়সী একটি পুরুষ এবং একটি মেয়ে উটপাখি আনা হয়। দেড় বছর এক সাথে থাকার পর উটপাখিটির পুরুষ সঙ্গীটি দুই বছর আগে মারা যায়। তখন থেকেই বিষন্ন মনে খাঁচায় এক একা দিন কাটছে পাখিটির। গত দুই বছরে এক ডজনের বেশি ডিম দিলেও পুরুষ সঙ্গী না থাকায় বাচ্চা ফোটেনি।

রংপুর চিড়িয়াখানার জু অফিসার ডা. এইচ এম শাহাদাৎ শাহিন জানান, ২০১৯ সালের ২৮ মার্চ ঢাকা থেকে তিন মাস বয়সী বাচ্চা উটপাখিটি আনা হয়েছে। দুই বছর পর গত মাস থেকে ডিম দেওয়া শুরু করেছে। এখন পর্যন্ত মোট ১০-১২টি ডিম দিয়েছে এই উটপাখিটি। যার একেকটি ডিমের ওজন প্রায় দেড় কেজি।

তিনি আরও জানান, পুরুষ সঙ্গি না থাকায় ডিমগুলো ফুটেনি। তাই ডিমের ভেতরের অংশ ফেলে দিয়ে শুধু খোসা সংরক্ষণে রাখা হয়েছে।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,629FollowersFollow
583SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles