30.6 C
Rangpur City
Monday, September 26, 2022
Royalti ad

‘আল্লাহর দান’ হোটেলে কুকুরের মাংস দিয়ে বিরিয়ানি বিক্রির অভিযোগ, আটক-১

-- বিজ্ঞাপন --

সাভারের আশুলিয়ায় কুকুরের মাংস দিয়ে বিরিয়ানি বিক্রির অভিযোগের ভিত্তিতে সংবাদ সংগ্রহ করতে গেলে সাংবাদিকদের ওপরে আল্লাহর দান বিরিয়ানি হাউজের মালিক রাজীব ও তার চাচাতো ভাই বিল্লাল চড়াও হন। এঘটনায় রাজীব (২২) নামে ঐ ব্যবসায়ীকে আটক করেছে পুলিশ।

রোববার (১৫ মে) রাত ১২ টার দিকে আশুলিয়ার নারসিংহপুর বাস স্ট্যান্ড সংলগ্ন আল্লাহর দান-৫ নামের দোকান থেকে তাকে আটক করা হয়। বিল্লাল (২৫) নামের আরও একজন ব্যবসায়ী পলাতক রয়েছেন বলে জানা যায়।

-- বিজ্ঞাপন --

আটক রাজীব বরিশাল জেলার মুলাদি থানার নুনচর গ্রামের চুন্ন হাওলাদারের ছেলে। আশুলিয়ার বিভিন্ন বাজারে তাদের আল্লাহর দান নামে ৭ টি বিরিয়ানির দোকান রয়েছে।

এছাড়া পলাতক বিল্লাল হোসেন একই এলাকার আবুল কালাম হাওলাদারের ছেলে। তারা সম্পর্কে চাচাতো ভাই।

-- বিজ্ঞাপন --

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানায়, অভিযোগের ভিত্তিতে ওই দোকানে সন্ধ্যায় কয়েকজন সাংবাদিক যান। সেখানে কুকুরের মাংস দিয়ে বিরিয়ানি রান্না করা হয় কি না জানতে চান তারা। এসময় আটক রাজীবের চাচাতো ভাই বিল্লাল মোটরসাইকেল নিয়ে ঘটনাস্থলে আসেন।

পরে সাংবাদিকদের ওপরে চড়াও হন বিল্লাল। এঘটনায় পুলিশকে খবর দিলে বিল্লাল শটকে পরেন। পরবর্তীতে রাত ১২ টার দিকে দোকানের মালিক রাজিবকে আটক করে আশুলিয়া থানা পুলিশ।

-- বিজ্ঞাপন --

ওই দোকানের বিরিয়ানি খেয়ে আলমগীর হোসেন নামের এক ক্রেতা সন্দেহ করেন। তাকে হুমকি ধামকি দিয়ে তাড়িয়ে দেন রাজীব ও তার দোকানের কর্মচারীরা।

ওই দোকানের বিরিয়ানি খেয়ে আলমগীর হোসেন নামের এক ক্রেতা সন্দেহ করেন। তাকে হুমকি ধামকি দিয়ে তাড়িয়ে দেন রাজীব ও তার দোকানের কর্মচারীরা। আলমগীর হোসেন বলেন, বিরিয়ানি খাওয়ার শুরুতেই আমার সন্দেহ হয়। পরে তাদের কিসের মাংস জিজ্ঞেস করলে গুরু বলে জানিয়ে রাগারাগি করেন। তাদের মনোভাব দেখে বিরিয়ানি না খেয়ে ১৮০ টাকা দিয়ে চলে যাই।

পুলিশের ভয়ে পালিয়ে যাওয়া ব্যবসায়ী সায়েদ হোসেন বিল্লাল বলেন, কিছু মানুষ চক্রান্ত করে আমাদের ফাঁসিয়েছে। আমাদের আশুলিয়ায় ৭টি শাখা। শাখা-৫ দোকানটি এক বছর হলো। এখানে প্রতিদিন ৩০ থেকে ৪০ হাজার টাকা বিক্রি হয়। কাঠগড়া বাজারের আলিম কসাইয়ের কাছ থেকে আমরা গরুর মাংস কিনি। মাংস ল্যাবে পরীক্ষা করে যদি অন্য কিছু পাওয়া যায় আপনারা যে শাস্তি দেবেন, আমরা তাই মাথা পেতে নিব।

আশুলিয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) সুব্রত রায় বলেন, প্রাথমিকভাবে ঘটনাস্থল থেকে অভিযুক্তকে আটক করে থানায় আনা হয়েছে। আলামত হিসেবে মাংস জব্দ করে পরীক্ষা উপজেলা ভেটেরিনারি সার্জনের কাছে পাঠানো হয়েছে।

পরীক্ষার পর বিষয়টি নিশ্চিত হওয়া যাবে। কোনো অভিযোগকারী না থাকায় আমি বাদী হয়ে মামলা দিয়ে আটক রাজীবকে ৫৪ ধারায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতে পাঠিয়েছি।

সাভার উপজেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডা. মো. সাজেদুল ইসলাম বলেন, আশুলিয়া থানার একজন কর্মকর্তা মাংস পরীক্ষার জন্য যোগাযোগ করেছেন। কিন্তু এখনো আলামত হাতে পাইনি। আমাদের এখানে সম্ভব না হলে প্রয়োজনে ঢাকায় ল্যাবে পরীক্ষার জন্য পাঠাবো।

-- বিজ্ঞাপন --

Related Articles

Stay Connected

82,917FansLike
1,629FollowersFollow
583SubscribersSubscribe
-- বিজ্ঞাপন --

Latest Articles